কোটা সংস্কারের দাবি :: ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন, অবরোধ-বিক্ষোভে আন্দোলনকারীরা






চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে ক্লাস-বর্জন করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ও নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) শিক্ষার্থীরা।

আজ সোমবার ঢাবির কোনো বিভাগে ক্লাস বা পরীক্ষা হয়নি। নোবিপ্রবির শিক্ষার্থীরাও কোনো ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নেননি। পাশাপাশি কোটা সংস্কারের দাবিতে ঢাকা-আরিচা সড়ক অবরোধ করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। পুলিশও সেখানে অবস্থান নিয়েছেন। টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে সেখানে।

এদিকে চট্টগ্রাম শহর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গামী শাটল ট্রেন বন্ধ করে দিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা, সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন আন্দোলনকারীরা। এ ছাড়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভের খবর পাওয়া গেছে। সেখানে শিক্ষার্থীরা রাজশাহী-নাটোর সড়ক অবরোধ করেছেন।

সরকারি চাকরিতে ৫৬ শতাংশ কোটা সংস্কার করে ১০ শতাংশে কমিয়ে আনার দাবিতে গতকাল রোববার থেকে সারা দেশে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বানে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা। এর অংশ হিসেবে গতকাল বিকেল ৩টা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও শাহবাগ এলাকায় কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা।

রাত পৌনে ৮টায় শাহবাগে অবস্থান নেওয়া আন্দোলনকারীদের ওপর কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে পুলিশ। এতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোটা ঢাবি এলাকা। বিক্ষোভে ফেটে পড়েন আন্দোলনকারীরা। এরপর দফায় দফায় চলতে থাকে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া আর সংঘর্ষ। বাড়তে থাকে আহতের সংখ্যা, যেখানে ছিল পুলিশ সদস্যও। গভীর রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবন ভাঙচুর করা হয়।

গতকাল রোববার রাতে আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা। যার ফলে আজ ঢাবির কোনো বিভাগে পাঠদান কার্যক্রম চলেনি।


মানববন্ধনে দাবি, নিরাপদ ক্যাম্পাস চাই
গতকালের হামলার ঘটনায় ঢাবির আইন অনুষদের সামনে মানববন্ধন করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। তাঁরা আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশি হামলার নিন্দা জানিয়েছেন।

মানববন্ধনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘আমরা নিরাপদ ক্যাম্পাস চাই। আমদের সহপাঠীদের ওপর রাতের আঁধারে যেভাবে হামলা হয়েছে, তা কোনোভাবে মেনে নেওয়া যায় না।’

তাঁরা বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া পুলিশ কীভাবে ক্যাম্পাসে ঢুকে শিক্ষার্থীদের ওপর হমলা করে? আমার বোন লাঞ্ছিত হয়েছে, ভাই রক্তাক্ত হয়েছে—এর জবাব ঢাবি প্রশাসনকে দিতে হবে।’

তবে সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আখতারুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ শান্ত। সবকিছু স্বাভাবিক নিয়মেই চলছে। হামলার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমার বাসভবনে হামলার ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক, এটি কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। হত্যার উদ্দেশ্যে এ হামলা হয়েছে।’

ঢাকা-আরিচা সড়ক অবরোধ
কোটা সংস্কারের দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা-আরিচার মহাসড়কের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেইরি গেটে এই অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন তাঁরা। এদিকে, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গেটে জলকামানসহ অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

শিক্ষার্থীরা জানান, সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবি না মানা পর্যন্ত তাঁরা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।


রাজশাহী-নাটোর সড়ক অবরোধ
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ক্লাস বর্জন করে নানা কর্মসূচি পালন করছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। আজ সোমবার সকাল থেকে বিভিন্ন একাডেমিক ভবনের প্রবেশপথে অবস্থান নেন তাঁরা। পরে সেখান থেকে সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল শেষে আবারও রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটকে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন শিক্ষার্থীরা।

ক্যাম্পাস সূত্র জানায়, সোমবার সকাল ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের প্রবেশপথগুলোতে অবস্থান নেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এ সময় কোনো শিক্ষার্থীকে শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। এরপর সোয়া ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি বিভিন্ন একাডেমিক ভবনের সামনে দিয়ে চারুকলা অনুষদে যায়।

এ সময় শিক্ষার্থীরা দলে দলে মিছিলে যোগ দেন। পরে মিছিলটি স্টেশন বাজার দিয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান নেয়। আজ কোনো বিভাগে ক্লাস হয়নি। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসগুলো ক্যাম্পাস ছেড়ে যায়নি বলেও জানা গেছে।

আন্দোলনের স্থানীয় সমন্বয়ক মাসুদ মুন্নাফ বলেন, ‘আন্দোলনের অংশ হিসেবে আজ ক্লাস বর্জন করা হয়েছে। এর বাইরে ক্যাম্পাসে মিছিল করেছি। শান্তিপূর্ণভাবে ক্যাম্পাসের ভেতরেই কর্মসূচি পালন করা হবে।’

এর আগে গতকাল দিবাগত রাত ১টার দিকে ঢাকায় আন্দোলনকারীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে আন্দোলনে ফেটে পড়েন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় তিন হাজার শিক্ষার্থী। তাঁরা হামলাকারীদের শাস্তি ও কোটা সংস্কারের দাবি জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে প্রায় এক ঘণ্টা অবস্থান করেন।


 

No comments

Powered by Blogger.