সাইবার নিরাপত্তায় জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করবে বাংলাদেশ-রাশিয়া


সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রাশিয়ার সহযোগিতায় ‘সেন্টার অব এক্সিলেন্স ইন সাইবার সিকিউরিটি’ প্রতিষ্ঠা করবে বাংলাদেশ। এ লক্ষ্যে একটি জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনে একমত হয়েছে বাংলাদেশ ও রাশিয়া। এ ছাড়া, ই-গভর্ন্যান্স কার্যক্রম আরও ফলপ্রসূ করতে দুই দেশের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক সইয়ের সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছে। রাশিয়া সফররত বাংলাদেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে রাশিয়ার মস্কোয় রুশ ফেডারেশনের যোগাযোগ ও গণমাধ্যমমন্ত্রী নিকোলাই নিকিফরেভের এক বৈঠকের পর এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সরকারের আইসিটি বিভাগের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বুধবার (১৪ মার্চ) রাতে নিকোলাই নিকিফরেভের সঙ্গে বৈঠক করেন জুনাইদ আহমেদ পলক। বৈঠকে সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রাশিয়ার সহযোগিতা চান আইসিটি প্রতিমন্ত্রী।

বৈঠকে পলক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণার পর থেকেই প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নেতৃত্বে আমরা গতিশীলতার সঙ্গে এই কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে যাচ্ছি। আগামী দিনে এই কার্যক্রম আরও বাড়বে। তবে দেশে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সাইবার ঝুঁকিও বাড়ছে। এই ঝুঁকি মোকাবিলায় আমাদের কার্যক্রম চলছে। কিন্তু রাশিয়ার মতো বন্ধুরাষ্ট্রের সঙ্গে পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে সাইবার ঝুঁকি মোকাবিলায় আমরা বিশ্বমানের সক্ষমতা অর্জন করতে চাই।’

প্রতিমন্ত্রীর এই প্রস্তাবে ইতিবাচক সাড়া দিয়ে নিকিফরেভ সাইবার ঝুঁকি মোকাবিলায় সম্ভাব্য সাইবার আক্রমণের আন্তঃরাষ্ট্রীয় আগাম তথ্য বিনিময়ে একমত পোষণ করেন এবং সাইবার নিরাপত্তায় পারস্পরিক সহযোগিতার ক্ষেত্র বাড়াতে উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়ার ওপর জোর দেন।

বৈঠকে বাংলাদেশে রাশিয়ার সহযোগিতায় ‘সেন্টার অব এক্সিলেন্স ইন সাইবার সিকিউরিটি’ প্রতিষ্ঠায় প্রতিমন্ত্রী পলকের আহ্বানে সম্মতি দেন রাশিয়ান মন্ত্রী নিকিফরভ। এ লক্ষ্যে একটি জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনেও তারা একমত হন।

এ ছাড়া, প্রতিমন্ত্রী রাশিয়াকে বাংলাদেশের হাইটেক পার্কগুলোতে রাশিয়ান বিনিয়োগ বাড়ানো, তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক উদ্ভাবন ও স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম প্রতিষ্ঠা এবং ই-গভর্ন্যান্স ও ই-সার্ভিস কার্যকর করতে রাশিয়ান মন্ত্রীকে সহযোগিতার আহ্বান জানান। এ সময় ই-গভর্ন্যান্স কার্যক্রম আরও ফলপ্রসূ করতে উভয় পক্ষ একটি সমঝোতা স্মারক সইয়ের সিদ্ধান্ত নেন।

প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মস্কোস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত ড. এস এম সাইফুল হক, সিলেট ইলেকট্রনিকস সিটির প্রকল্প পরিচালক ব্যারিস্টার মো. গোলাম সরওয়ার ভূঁইয়া প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৪ থেকে ৮ ডিসেম্বর স্কোলকোভো ফাউন্ডেশনের হেড অব ইন্টারন্যাশনাল এক্সিলারেশন প্রোগ্রাম দারিয়া লিপাতোভার নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল যশোরের শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কালিয়াকৈরের বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি পরিদর্শন করেন। প্রতিনিধি দল ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭-তে অংশ নেন এবং ৭ ডিসেম্বর প্রতিমন্ত্রী পলকের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। তাদের আমন্ত্রণেই গত ১২ মার্চ রাশিয়া সফরে যান প্রতিমন্ত্রী পলক।


No comments

Powered by Blogger.