হামলার শিকার হওয়ার পর এই প্রথম পাকিস্তানে মালালা


শান্তিতে নোবেলজয়ী মালালা ইউসুফজাই বৃহস্পতিবার পাকিস্তানে ফিরে এসেছেন। মেয়েদের শিক্ষার প্রচারণা চালানোর জন্য ছয় বছর আগে তালেবানের হামলার শিকার হওয়ার পর এই প্রথম মালালা তার জন্মভূমিতে ফিরে আসলেন। কর্মকর্তারা একথা জানান।

মালালা তার সাহস ও কর্মকা-ের জন্য আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অনেক প্রশংসিত হলেও পাকিস্তানে এ নিয়ে মতপার্থক্য রয়েছে। পাকিস্তানের রক্ষণশীলরা তাকে একজন পশ্চিমা এজেন্ট হিসেবে বিবেচনা করে থাকে। পাকিস্তানের জন্য এটি লজ্জার।

সরকারি এক কর্মকর্তা জানান, নিজের দেশে চারদিনের সফরকালে মালালা প্রধানমন্ত্রী শহিদ খাকানের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে সফর কেন্দ্রিক স্পর্শকাতরতার কারণে গোপনীয়তা বজায় রাখার স্বার্থে বিস্তারিত আর কিছু বলা যাচ্ছে না।

স্থানীয় টেলিভিশনে সম্প্রচারিত ভিডিও ফুটেজে বাবা-মা’র সঙ্গে থাকা ২০ বছর বয়সী এ শিক্ষার্থীকে কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যদিয়ে ইসলামাবাদের বেনজির ভুট্টো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে নিয়ে যেতে দেখা গেছে।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ৯ অক্টোবর সোয়াত উপত্যকায় মালালার স্কুল বাসে এক তালেবান জঙ্গি বন্দুক হামলা চালানোর পর তিনি আন্তর্জাতিক অঙ্গণে মানবাধিকারের প্রতীক হয়ে উঠেন। আর তখনই প্রশ্ন ওঠে মালালা কে? এবং কেন তাকে গুলি করা হলো।

জঙ্গি হামলার শিকার হওয়ার পর মালালা ব্রিটেনের বার্মিংহাম নগরীতে চিকিৎসা নেন এবং সেখানে তার স্কুল শিক্ষা শেষ করেন।

২০১৪ সালে তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কার পান। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা গ্রহণের পাশাপাশি মালালা তার নারী শিক্ষা প্রচারণা কার্যক্রম চালিয়ে যাবেন। 


No comments

Powered by Blogger.