“বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ সবসময়ের জন্য প্রাসঙ্গিক” -কুয়েট ভাইস-চ্যান্সেলর


জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ০৭ মার্চের ভাষণ “বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য” হিসেবে ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত বাঙ্গালী জাতির ঐতিহাসিক দিনটি পালন উপলক্ষে বুধবার বিকাল ৩টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সেন্টারে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।  

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর। বক্তৃতায় কুয়েট ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর বলেন, “বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ সবসময়ের জন্য প্রাসঙ্গিক। আমাদেরকে তাঁর ভাষণকে উপলব্ধি করতে হবে। স্বাধীনতার চেতনাকে ধারণ এবং প্রতিপালন করতে হবে। ৭ মার্চের ভাষণ থেকে শিক্ষা নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে হবে। 

কুয়েট ভিসি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ মুক্তিযুদ্ধে বাঙ্গালীকে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে। এ ভাষণ এখনও আমাদের শরীর ও মনে শিহরণ জাগায়। ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য’ হিসেবে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ স্বীকৃতি পাওয়ায় আমরা গর্বিত”। 

আলোচনা সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ) প্রফেসর ড. সোবহান মিয়া’র সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. কাজী হামিদুল বারী ও মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মিহির রঞ্জন হালদার। 

পাবলিক রিলেশনস অফিসার মনোজ কুমার মজুমদার এর সঞ্চালনায় এসময় আরো বক্তৃতা করেন শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি প্রফেসর ড. পিন্টু চন্দ্র শীল, আইইএম বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. আজিজুর রহমান, মানবিক বিভাগের প্রভাষক আবু হেনা মোস্তফা কামাল, রেজিস্ট্রার জি এম শহিদুল আলম, অফিসার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মাহমুদুল হাসান, শিক্ষার্থীদের মধ্যে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কুয়েট শাখার সভাপতি আবুল হাসান শোভন ও সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান এবং কর্মচারীদের মধ্যে মোঃ পারভেজ আলম।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের ভিডিও প্রদর্শণ করা হয় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মোঃ ফারহান আকিফ কবি নির্মলেন্দু গুনের রচিত ‘স্বাধীনতা, এই শব্দটি কিভাবে আমাদের হল’ কবিতাটি আবৃত্তি করেন। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


No comments

Powered by Blogger.