Life of Engineers....


কি মনে হয়, ইঞ্জিনিয়ারদের জীবনটা অনেক সহজ?? 

তাহলে শুনেন ইঞ্জিনিয়ারদের দুঃখের কথা....

একটা সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র যখন কাঁধে t- scale ঝুলিয়ে রাস্তা দিয়ে হাঁটে তখন আপনি বলেন "ছেলেটা ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে বলে ভাব নিচ্ছে"। 
কিন্তু ঐ T-scale টা যে হাজার কান্নার সাক্ষী সেটা আপনি জানেনননা। 
আপনি ওর কাঁধের t-scale টা দেখেন কিন্তু ওর ব্যাগের বড় বড় বই গুলো আপনি দেখেননা, একটা ড্রয়িং করতে ছেলেটা কতো কাঠ-খড় পোড়ায় তা আপনি জানেননা, তার কাঁধে t-scale এর সাথে যে হাজার সপ্নের বুঝা আছে তা আপনি দেখেননা। 

একটা কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র যখন কম্পিউটারের সামনে বসে ফটো আপলোড দেয় তখন আপনি বলেন শালার কি ভাগ্য!! 
কিন্তু আপনি দেখেননা ছবির আরালে থাকা কম্পিউটার স্ক্রিনে ছেলেটির কোডিং করার কষ্ট, দেখেননা যখন কোনো প্রোগ্রাম সলভ করার জন্য ছেলেটি সাড়া রাত না ঘুমিয়ে কাটিয়ে দেয়। 
আপনি ওর কম্পিউটারের বাহ্যিক অংশ দেখেন কিন্তু এর ভিতরের শতোটা ফোল্ডার আপনি দেখেননা। 

একটা মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র যখন বড় বড় যন্ত্রের পাশে দাঁড়িয়ে ফটো তোলে তখন আপনি বলেন আমিও যদি ওর মতো ফটো তোলাতাম!! 
কিন্তু ঐ ছেলেটির কষ্ট আপনি বুঝবেননা, কারন ঘন্টার পর ঘন্টা ওয়ার্কশপে কাটানোর কষ্টটা তো আর সে ফটো তোলে দেয় নাই। 

EEE এর ছাত্রের মাথার ঝাঁকড়া চুল দেখে আপনি মনে করেন ছেলেটা কি সুখে আছে!! 
কিন্তু আপনি বুঝেননা যে, সার্কিটের মার-প্যাঁচে পরে ছেলেটা নিজের চুল- দাঁড়ি কাটতেই ভুলে যায়। 


আপনি ipe এর ছাত্রের চাকরির সুবিধা দেখে মনে করেন এদের জীবনটা তো জোস!! 
কিন্তু আপনি ছেলে গুলোর কষ্ট করা দেখলে নিজেই কেঁদে ফেলবেন। 


ডাক্তারদের কষ্ট সবাই জানে কিন্তু ইঞ্জিনিয়ারদের কষ্ট কেউ জানেনা, কারন ইঞ্জিনিয়াররা মেশিনের সাথে থাকতে থাকতে নিজেকে মেশিনে পরিনত করে ফেলে। 

তারা নিজের দুঃখকে নিজের মধ্যে লুকিয়ে রেখে হাসি মুখে চলতে শিখে যায়, তাই তাদের কষ্টটা কেউ উপলব্ধি করতে পারেনা। খুশিতে বেঁচে থাকুক সব ইঞ্জিনিয়ার এইটাই আমাদের প্রত্যাশা। 

লোকে বলে শেয়ার করলে নাকি দুঃখ কমে, চলেন ইঞ্জিনিয়াররা নিজের ও নিজের বন্ধুদের দুঃখ শেয়ার করেন। সাথে আমি তো আছিই। 

[বিঃদ্রঃ এখানে ছাত্র-ছাত্রী উভয়ের কথাই বুঝানো হয়েছে]



- Md Shahazalal Ujjol 

No comments

Powered by Blogger.