“BSMRSTU, গোপালগঞ্জ” কে আন্তর্জাতিক পরিচিতি এনে দিয়েছেন ভিসি স্যার ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন


২০০৭ সালে যখন RUET -রাজশাহীতে থাকি তখন কেউ বাড়ি কোথায় জিজ্ঞাসা করলে, গোপালগঞ্জ বললে কেউ চিন্তনা, কোথায় কোন দিকে এভাবে বলত, নেকে বঙ্গবন্ধুর দেশ  টুঙ্গিপাড়া কথা যানে কিন্তু তারা আবার টুঙ্গিপাড়া কে গাজীপুরের টুঙ্গি ভাবত, ফরিদপুর এর পরেই গোপালগঞ্জ এভাবে বললে নেকে চিনতো। ভীষণ রাগ  াগত আমাদের গোপালগঞ্জের সাথে বঙ্গবন্ধুর-বাংলাদেশ-শেখ হাসিনা ওতপ্রোতভাবে জড়িত  বুও কেউ গোপালগঞ্জের নাম আগে শুনে নাই এমন ভাব দেখে। তখন বুঝতাম না এখন বুঝি কেন চিনবে, কি আছে গোপালগঞ্জে? যা হোক ২০১১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এ ক্লাশ শুরুর পরের থেকে ৮ টা অনুষদ এর আধিনে ৩টা ডিপার্টমেন্টে এ প্রায় ১৫হাজার ছাত্র-ছাত্রী পড়া শুনা করার সুযোগ হয়েছে, বর্তমান ভিসি ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন স্যারে আপ্রাণ চেষ্টায় সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ফিশারিজ ও মেরিন বায়োসাইন্স এনিমেল হাসবেন্ডারি এন্ড ভেটেরনারি সাইন্স   সহ আরও টি ডিপার্টমেন্ট বছর চালু হয়েছে। এখন দেশে প্রতিটি উপজেলা থেকে কমপক্ষে ২০০ জন ছাত্র-ছাত্রী পড়তে আসতেছে, তারা এবং তাদের পরিচিত জন এখন গোপালগঞ্জ  এ আসতেছে যানতেছে। আশা করি এখন গোপালগঞ্জ কে এখন আর এতো কষ্ট করে চেনাতে হচ্ছে  না।   

ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন স্যার আক্লান্ত চেষ্টায়  নেপাল, ভুটান, সোমালিয়া সহ অন্যান্য দেশ থেকে প্রায় ৩০০ জন বিদেশি ছাত্র-ছাত্রী পড়তে এসেছে, আগামিতে আরো আসবে এর ধারাবাহিকতায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নাম এবং খ্যাতি ছড়িয়ে পরেছে,ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন স্যার গোপালগঞ্জেকে এক আনন্য পরিচিতি এনে দিয়েছে নবীণ বিশ্ববিদ্যালয়  হিসেবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দেশে-বিদেশে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করে ১ম স্থান পেয়েছে, বিশেষ করে CSE-ডিপার্টমেন্টভিসি ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন স্যার বৃক্ষরোপনে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার, শিক্ষা ক্ষেত্রে ও মানুষ গড়ার কারিগর হিসেবে বিশেষ অবদানের জন্য বঙ্গবন্ধু একাডেমী কর্তৃক প্রদত্ত বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পদক-২০১৭অর্জন করেন।  



ভিসি ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন স্যারের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বছরের প্রথম দিন জানুয়ারির ১তারিখেই অরিয়েন্টেশন এবং স্নাতক(সন্মান) সম্পন্ন ছাত্র-ছাত্রীদের সনদ প্রদান করা হয়, ১০০% সেশনজট মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়  বিজ্ঞান-গণিত অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিানের আয়োজনের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় টি গোপালগঞ্জ এবং আশে পাশের জেলার স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীদের মননকে জাগ্রত করে এই অত্র এলাকার লেখা পড়ার মান উন্নয়নে বিশেষ ভুমিকা রেখেছে চলেছে। ভিসি স্যার  ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন স্যারে আন্তরিক আগ্রহের ফলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে একটি হাই-টেক পার্ক (৭তলা মাল্টিটেনেন্ট ভবন নির্মাণ, ৩তলা ডরমিটরি ভবন নির্মাণ, ৩তলা ক্যান্টিন ভবন)স্থাপিত হচ্ছে।   

চলমান একাডেমিক ভবন, ২টি ছাত্র হোস্টেল, ১টি ছাত্রী হোস্টেল, বিদেশি ছাত্র-ছাত্রী ডরমেটরী, শিক্ষক কর্মকর্তাদের আবাসিক ভবন নির্মাণ শেষ হলে, নান্দনিক গেট, সুশজিত ইমারত, সবুজ গাছপালা আর বিভিন্ন ফুলের পাশাপাশি, ১৫-২০হাজার ছাত্র-ছাত্রী এবং বিজ্ঞ শিক্ষক মণ্ডলীর পদচারনীতে একদিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যম্পাস ভরে উঠবে, সেদিন এই ক্যম্পাস হবে গোপালগঞ্জ বাসীর প্রশান্তির যায়গা, গোবরা-গোপালগঞ্জ বাসী আবশ্যই ভিসি স্যার ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন স্যারের কথা মনে রাখবে



      লেখক
সরাফত খান, গোবরা-গোপালগঞ্জ
B.Sc(EEE-06) & M.Sc(EEE), RUET
Email: sarafat.44k@gmail.com


 

যে কেউ তার প্রিয় স্যার অথবা প্রিয় ব্যাক্তিত্ব সম্বন্ধে ইমেইলে আমাদের পত্রিকায় লেখা দিতে পারেন। 

আমাদের ইমেইল: engrsvoice@gmail.com



Powered by Blogger.