হবিগঞ্জে পরমাণু শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহার শীর্ষক সেমিনার


জেলায় পরমাণু শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহার শীর্ষক সেমিনার ও বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসন ও জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক ফজলুল জাহিদ পাভেলের সভাপতিত্বে সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর এর সহকারী কিউরেটর এস.এম. আবু হান্নান। আলোচনায় অংশ নেন, হবিগঞ্জ পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ মোতাহার হোসেন, সরকারী মহিলা কলেজের সাবেক উপাধ্যক্ষ আব্দুস জাহের, প্রেসক্লাব সভাপতি শাবান মিয়া ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান।

সেমিনারে মূল বক্তব্যে বলা হয়, বিজ্ঞান মনস্ক জাতি গঠনের লক্ষ্যে দেশে ৩৫০টি বিজ্ঞান ক্লাব গঠন করা হয়েছে। প্রকাশ করা হচ্ছে ত্রৈমাসিক সাময়িকি নবীন বিজ্ঞানী। গত বছর দেশের ১৬৪টি স্কুলে বিজ্ঞান উপকরণ ক্রয়ের জন্য ১ লাখ টাকা করে অনুদান প্রদান করা হয়েছে। দেশের ৮ বিভাগে নির্মাণ হবে সায়েন্স সেন্টার। দেশে প্রতষ্ঠা হবে দুটি সায়েন্স সিটি।

সেমিনারে আরও বলা হয়, বাংলাদেশে উন্নত প্রযুক্তির পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ হচ্ছে। ২০২৩ সালে এ কেন্দ্র থেকে জাতীয় গ্রীডে সরবরাহ হবে ২ হাজার ৪শ’ মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ। একই পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদনে যেখানে প্রয়োজন হয় ৩ মিলিয়ন টন কয়লা সেখানে পরমাণুতে জ্বালানি প্রয়োজন হয় ২৫ টন। কয়লাতে বর্জ্য উৎপাদন হয় অনেক বেশি। তাই ব্যবস্থাপনাগত দিক থেকে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র সুবিধাজনক। এ বিদ্যুৎ ব্যবহারকারী দেশ ৩১টি। বাংলাদেশ হবে ৩২তম। দুর্ঘটনার ক্ষেত্রেও সব চেয়ে কম ঝুঁকিপূর্ণ এ বিদ্যুৎ কেন্দ্র।

পরে বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতায় জেলার ৮টি উপজেলার ২টি করে দল অংশ গ্রহণ করে। 


(বাসস)


No comments

Powered by Blogger.