পরাজয়ের কারণ খুঁজছে আওয়ামী লীগ


সদ্য সমাপ্ত রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক) নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বড় ব্যবধানে পরাজয়ের কারণ খুঁজছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। একই সঙ্গে নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ায় সন্তুষ্টি প্রকাশের পাশাপাশি বিএনপির ভোটপ্রাপ্তির সংখ্যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের নেতারা।

শনিবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম সভাপতিমণ্ডলীর সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় এসব বিষয়ে আলোচনা হয় বলে জানিয়েছেন দলটির দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দলটির তিনজন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বলেন, নির্বাচনে এতো বড় ব্যবধানে পরাজয় ছিল অপ্রত্যাশিত। প্রার্থী নির্বাচনে ভুল ছিল কি না, কারা দলীয় প্রার্থীকে অসহযোগিতা করেছে এবং পরাজয়ের কারণ খুঁজে বের করার সিদ্ধান্ত হয়। তবে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হারলেও একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে।

এ সময় সভাপতিমণ্ডলীল সদস্যদের বিভাগীয় দায়িত্ব নিয়ে সারা দেশে জাতীয় নির্বাচনের জন্য প্রচারণা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কেন্দ্রীয় নেতারা কে কোথায় সফর করবেন তার একটা খসড়া তালিকা করা হয় বলে জানান দলের দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ। জানা গেছে, নির্বাচনী প্রস্তুতির অংশ হিসেবে জানুয়ারি থেকে জেলায় জেলায় কেন্দ্রীয় নেতারা সফর করবেন।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশ নির্বাচনের প্রার্থী নিয়েও এই বৈঠকে আলোচনা হয়। বৈঠকে উপস্থিত এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে গ্রহণযোগ্য প্রার্থী দেয়া হবে। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরই আমরা দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করব। জনগণের প্রত্যাশা পূরণ হওয়ার মতোই প্রার্থী দেয়া হবে।’
ওই নেতা জানান, ৫ জানুয়ারি ‘গণতন্ত্র রক্ষা দিবস’ পালন ও ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে বড় ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে দলের পক্ষ থেকে। এসব কর্মসূচিতে বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও কর্মকাণ্ডের চিত্র থাকবে প্রচারণায়। এখন থেকে আগামী নির্বাচন পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াতের ধ্বংসযজ্ঞের চিত্র বারবার জনগণের সামনে তুলে ধরার কৌশল গ্রহণ করা হয়েছে।

সভায় সম্প্রতি আওয়ামী লীগের তিন নেতার মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব গৃহীত হয়।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, মতিয়া চৌধুরী, কাজী জাফরুল্যাহ, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, ড. আবদুর রাজ্জাক, কর্নেল (অব.) ফারুক খান, আবদুল মতিন খসরু, রমেশচন্দ্র সেন, আবদুল মান্নান খান ও ওবায়দুল কাদের প্রমুখ।


সানশাইন

No comments

Powered by Blogger.