ভেষজ উদ্ভিদ বাজারজাতকরণের পথ প্রশস্ত হচ্ছে


নাটোর ওষুধী গ্রামের কৃষকদের উৎপাদিত ভেষজ উদ্ভিদ বাজারজাতকরণের পথ প্রশস্ত হচ্ছে। দেশের খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠান একমি, সিনজেনটা ও হামদর্দ কোম্পানী এখানকার উৎপাদিত ভাল ও মানসম্পন্ন ভেষজ পণ্য কেনার প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন। তারা বছরব্যাপী সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে গৃতকুমারী, অর্শ্বগন্ধা, বাসক ও তুলসী ভেষজ কিনবেন।

বুধবার সকাল ১০ টার সময় সদর উপজেলা পরিষদ হলরুমে উত্তরা ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম সোসাইটি (ইউডিপিএস) আয়োজিত এক কর্মশালায় এ তথ্য জানানো হয়। নাটোর সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর, বড়হরিশপুর ও সিংড়ার শেরকোল ইউনিয়নের ওষুধী গ্রামের কৃষকদের নিয়ে মানসম্পন্ন উদ্ভিজ্জ ভেষজ পণ্য উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বাজারজাতকরণের মাধ্যমে উদ্যোক্তাদের আয় বৃদ্ধি শীর্ষক ভ্যালুচেইন প্রকল্প সংযোগ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জেসমিন আক্তার বানু। আরো বক্তব্য রাখেন, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার জয়নাল আবেদীন, জেলা কৃষি বিপনন অধিদপ্তরের মার্কেটিং অফিসার নুর মোমেন, জেলা ওষুধ তত্বাবধায়ক ( ড্রাগ সসুপার) আব্দুর রশীদ, উপজেলা সমবায় অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান, একমি কোম্পানীর এরিয়া ম্যানেজার আবু রায়হান, হামর্দাদের শাখা ব্যবস্থাপক মখলেজার রহমান, সিনজেনটা কোম্পানীর সেলস অফিসার জিয়ার রহমান, উত্তরা ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম সোসাইটি (ইউডিপিএস) প্রজেক্ট ম্যানেজার সুজিৎ কুমার ঘোষ, সংস্থার বিডিও মারুফ আহমেদ, সুমিত্রা দেব, এমএ সেলিম, এডমিন অফিসার তামিরুল ইসলাম, স্থানীয় কৃষক জাভেদ ভুইয়া, নাজমা বেগম, আব্দুল মতিন গাজি প্রমুখ।

উত্তরা ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম সোসাইটি (ইউডিপিএস) প্রজেক্ট ম্যানেজার সুজিৎ কুমার ঘোষ জানান, নাটোর সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর, বড়হরিশপুর ও সিংড়ার শেরকোল ইউনিয়নের ওষুধী গ্রামে প্রতবছর দুই হাজার ৩৭ বিঘা জমিতে মোট ২৪ হাজার ৪৫৭ মেট্রিক টন বিভিন্ন ভেষজ উদ্ভিদ উৎপাদন হচ্ছে। এরমধ্যে এক হাজার বিঘা জমিতে ২৪ হাজার মেট্রিক টন ঘৃতকুমারী, ২০০ বিঘা জমিতে ১৪৮ মেট্রিক টন অশ্বগন্ধা, ৫০০ বিঘা জমিতে ১০০ মেট্রিক টন শিমুল মুল এবং বাকিগুলো বিভিন্ন ভেষজ উৎপাদন হয়। একাজের সাথে সাড়ে ৪ হাজার কৃষক, ২০ জন নার্সারী মালিক,৩০ জন ছোট বড় ব্যবসায়ী ও ৩০ প্রক্রিয়াজাতকারী জড়িত রয়েছেন। তাদের উৎপাদিত ভেষজ পণ্য, উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরন ও বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে কাজ করছে ইউডিপিএস।

No comments

Powered by Blogger.